শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০২:৩৩ অপরাহ্ন

শিরোনাম
বাংলাদেশ উচ্চ বিদ্যালয়ে নবীন বরণ-জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী সংবর্ধনা রঙিন ফুলকপি চাষ করে জীবন রাঙাতে চায় ঝিনাইগাতীর শফিকুল  ১নং কেন্দুয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সাইফুল ইসলাম খান সোহেল সফলতার সাথে ইউনিয়নের উন্নয়নমূলক কাজ করে আজ প্রথম বছর পেরিয়ে দ্বিতীয় বছরে পদার্পণ হাজীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে বই বিতরণ কেন্দুয়া বাংলাদেশ উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দিলেন কেন্দুয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সাইফুল ইসলাম খান সোহেল কুটামনি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নতুন বই পেয়ে উচ্ছ্বসিত কেন্দুয়া বাংলাদেশ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে নতুন বই বিতরন বকশীগঞ্জ আ.লীগ সভাপতির বাসায় দূর্ধষ ডাকাতি জামালপুরের মেষ্টা ইউনিয়নে বুদ্ধি প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণ, ধর্ষক চাচা গ্রেপ্তার জামালপুরে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ৩২তম বার্ষিক সদস্য সভা অনুষ্ঠিত
আসন্ন ইউপি নির্বাচনে নূরে আলম তালুকদার ভূট্রোকে চেয়ারম্যান চায় ইউনিয়নবাসী

আসন্ন ইউপি নির্বাচনে নূরে আলম তালুকদার ভূট্রোকে চেয়ারম্যান চায় ইউনিয়নবাসী

বিশেষ প্রতিনিধি: শেরপুরের নকলা উপজেলা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৩ নং উরফা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নূরে আলম তালুকদার ভূট্রোকে চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায় উরফা ইউনিয়নবাসী। উরফা ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি জায়গা লয়খা মোড়,তারাকান্দা বাজার,পিছলাকুড়ি গ্রাম ও উরফা শিমুলতলী বাজারে নির্বাচন নিয়ে সাংবাদিকরা জনগণের মতামত নিতে যান। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তরুন থেকে বৃদ্ধ,ছাত্র শিক্ষক সহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার বেশিরভাগ জনতা নূরে আলম তালুকদার ভূট্রোকেই নৌকার মাঝি হিসেবে দেখতে চায়।

সাধারণ জনগণ বলেন, গরীবের বিপদে আপদে সবসময় ভুট্রোকেই কাছে পাওয়া যায়। আবার উরফা শিমুলতলী বাজারের জনতা বর্তমান চেয়ারম্যান রেজাউল করিম হিরার গুনগান গেয়ে তাকেই নৌকার মাঝি হিসেবে দেখতে চায়। উরফা ইউনিয়নের ৩(তিন) জন প্রার্থী আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। নূরে আলম তালুকদার ভূট্রো,রেজাউল করিম হিরা ও ছফির উদ্দিন।

ইউনিয়নের ভোটারগণ বলেন, ভূট্রোকে যদি নৌকা মার্কা থেকে বঞ্চিত করা হয় তবুও তাকে নির্বাচনে দাঁড় করাবে এবং বিপুল ভোটে তাকে জয়যুক্ত করবে। লয়খা গ্রামের কয়েকজন বয়স্ক ভোটার বলেন,ভূট্রোর বাবা মরহুম আলাউদ্দিন তালুকদার ছিলেন নকলা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং তিনি নকলা উপজেলা কৃষক লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। শুধু তিনি নয় ভূট্রোর দাদা মরহুম সাদির মাহমুদ ছিলেন নকলা উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং ৭১ এর মুক্তিযোদ্ধা সংগ্রাম পরিষদের নকলা উপজেলা অন্যতম সদস্য ছিলেন।নূরে আলম তালুকদার ভুট্টোর সহোদর ছোট ভাই নকলা উপজেলা পরিষদের পর পর দুই বারের ভাইস চেয়ারম্যান সারোয়ার আলম তালুকদার।
তারা জন্মগতভাবে আওয়ামী লীগ করে আসছেন। তাই একমাত্র নূরে আলম তালুকদার ভূট্রোই বঙ্গবন্ধুর নৌকার মাঝি হওয়ার যোগ্যতা রাখে। আমরা ভূট্রোকেই নৌকার মাঝি হিসেবে দেখতে চাই।

সাধারণ জনগন আরো জানান,নূরে আলম তালুকদার ভুট্টো স্কুল,কলেজ শাখা সহ নকলা উপজেলা ছাত্রলীগ এর নেতৃত্ব দিয়েছেন। ভূট্টোর বাবা জমি বিক্রি করে নকলা উপজেলা আওয়ামীলীগকে সুসংগঠিত করার জন্য অর্থ ব্যায় করেছেন। আওয়ামীলীগের দুঃসময়ের সকল আন্দোলন সংগ্রামে আলা উদ্দিন তালুকদার এর নেতৃত্বে নকলা বাজারে বড় মিছিল নিয়ে যেতেন। অতীতে শেখ হাসিনা নকলা উপজেলায় আগমন করলে মরহুম আলা উদ্দিন তালুকদার তাকে সোনার নৌকা উপহার দিয়েছিলেন।
জানা যায়,মানুষের সুখে দু:খে সব সময় সাহায্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। বিপদের কথা শুনলে বিপদ গ্রস্থ মানুষের বাড়িতে হাজির হয়ে যান। দীর্ঘ সময় অসহায় মানুষের সেবা করে যাচ্ছেন এই মানবিক মানুষ। তিনি বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসা,শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের জন্য আর্থিক অনুদান দেয়া সহ করোনা মহামারীতে কর্মহীন হয়ে পড়া বিপদগ্রস্ত মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী ও নগদ অর্থসহ মাস্ক বিতরণ করেছেন। মানব সেবার মাধ্যমে আপামর জনতার হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন তিনি । অসহায় মানুষের পাশে থেকে মানবতার কল্যানে কাজ করে সকলের হৃদয়ে উজ্জল নক্ষত্র হয়ে শোভা বর্ধন করছেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply




© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design & Developed BY SheraWeb.Com