বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১১:২২ অপরাহ্ন

শিরোনাম
বাংলাদেশ উচ্চ বিদ্যালয়ে নবীন বরণ-জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী সংবর্ধনা রঙিন ফুলকপি চাষ করে জীবন রাঙাতে চায় ঝিনাইগাতীর শফিকুল  ১নং কেন্দুয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সাইফুল ইসলাম খান সোহেল সফলতার সাথে ইউনিয়নের উন্নয়নমূলক কাজ করে আজ প্রথম বছর পেরিয়ে দ্বিতীয় বছরে পদার্পণ হাজীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে বই বিতরণ কেন্দুয়া বাংলাদেশ উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দিলেন কেন্দুয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সাইফুল ইসলাম খান সোহেল কুটামনি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নতুন বই পেয়ে উচ্ছ্বসিত কেন্দুয়া বাংলাদেশ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে নতুন বই বিতরন বকশীগঞ্জ আ.লীগ সভাপতির বাসায় দূর্ধষ ডাকাতি জামালপুরের মেষ্টা ইউনিয়নে বুদ্ধি প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণ, ধর্ষক চাচা গ্রেপ্তার জামালপুরে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ৩২তম বার্ষিক সদস্য সভা অনুষ্ঠিত
চাউল কম দেয়ার প্রতিবাদ করায় মারলেন ইউপি চেয়ারম্যান

চাউল কম দেয়ার প্রতিবাদ করায় মারলেন ইউপি চেয়ারম্যান

নিজস্ব প্রতিবেদক ।।
জামালপুর সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রীর ভিজিএফের ১০ কেজি চাল প্রণোদনায় ৬ ও ৭ কেজি চাল বিতরণের সময় প্রতিবাদ করলে জনসম্মুখে হামলা ও মারধর করেছেন ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান মঞ্জু।
গত সোমবার (১৯ জুলাই) দুপুরে সদর উপজেলার গোপালপুর ঘুন্টি এলাকায় মারধরের শিকার অটোরিকশা চালক মো. জাহাঙ্গীর আলম এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন।
তিনি জানান, রবিবার (১৮ জুলাই) বিকেল ৩টায় আমি বাংলাদেশ উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রণোদনার চাল নিতে যাই। সেখানে জনপ্রতি ১০ করে চাল দেয়ার কথা থাকলেও প্রত্যেককে ৬ থেকে ৭ কেজি করে চাল বিতরণ করা হচ্ছিল। আমি এর প্রতিবাদ করলে চেয়ারম্যান সবার সামনে আমার মুখে কানে চড়-থাপ্পর দেন। এতে আমার কান দিয়ে রক্ত বের হয়। এখন কানে কম শুনছি। প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছি। আমি ছাড়াও আরও দুই-তিনজনকে মারধর করেছে ওই চেয়ারম্যান।
এ ঘটনা আমি এলাকার মাতব্বরগণকে জানিয়েছি। তাদের পরামর্শ নিয়ে আজ সংবাদ সম্মেলনে এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত মৃত রহমত আলী শেখের ছেলে মো. মোশাররফ আলী মুছা বলেন, ঘটনাস্থলে আমিও ছিলাম। চাল কম দেয়ার ঘটনা চেয়ারম্যানকে জানালে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে নিজহাতে জাহাঙ্গীর, জহুসহ কয়েকজনকে মারধর করেন।
একই এলাকার মৃত আজাহার আলীর ছেলে হাসান মাসুদ বলেন, জনগণের সাথে চেয়ারম্যানের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। তিনি খেয়ালখুশি মতো কাজ করছেন। ফলে ইউনিয়নের সার্বিক উন্নয়ন ব্যাহত হচ্ছে।
এ বিষয়ে কেন্দুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ মাহবুব আলম মঞ্জু বলেন, মারধরের কোনো ঘটনা ঘটেনি। যে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে সে লাইনে বিশৃঙ্খলা করছিল। আমি তাকে লাইন ঠিক করার জন্য ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দিয়েছি। আমার প্রতিপক্ষরা আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply




© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design & Developed BY SheraWeb.Com