শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০২:০৫ অপরাহ্ন

শিরোনাম
বাংলাদেশ উচ্চ বিদ্যালয়ে নবীন বরণ-জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী সংবর্ধনা রঙিন ফুলকপি চাষ করে জীবন রাঙাতে চায় ঝিনাইগাতীর শফিকুল  ১নং কেন্দুয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সাইফুল ইসলাম খান সোহেল সফলতার সাথে ইউনিয়নের উন্নয়নমূলক কাজ করে আজ প্রথম বছর পেরিয়ে দ্বিতীয় বছরে পদার্পণ হাজীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে বই বিতরণ কেন্দুয়া বাংলাদেশ উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দিলেন কেন্দুয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সাইফুল ইসলাম খান সোহেল কুটামনি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নতুন বই পেয়ে উচ্ছ্বসিত কেন্দুয়া বাংলাদেশ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে নতুন বই বিতরন বকশীগঞ্জ আ.লীগ সভাপতির বাসায় দূর্ধষ ডাকাতি জামালপুরের মেষ্টা ইউনিয়নে বুদ্ধি প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণ, ধর্ষক চাচা গ্রেপ্তার জামালপুরে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ৩২তম বার্ষিক সদস্য সভা অনুষ্ঠিত
মেষ্টায় চেয়ারম্যান হিসেবে আ’লীগের জন্য চোখ হারানো বাদল তরফদারের পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি

মেষ্টায় চেয়ারম্যান হিসেবে আ’লীগের জন্য চোখ হারানো বাদল তরফদারের পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥
জামালপুর সদর উপজেলার ১৩নং মেষ্টা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান হিসেবে আওয়ামী লীগের জন্য চোখ হারানো মোঃ হারুন-অর-রশিদ তরফদার বাদল ওরফে বাদল তরফদারের পক্ষে ইউনিয়নজুড়ে এক গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে।
আসন্ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে অনেকেই রীতিমত দৌঁড়ঝাপ চালিয়ে যাচ্ছেন। দৌঁড়ঝাপে ঘর্মক্লান্ত এই মনোনয়ন প্রত্যাশীদের তালিকা অনেক দীর্ঘ হলেও, মাঠদখলে এদের অধিকাংশেরই নেই কোন শক্তিশালী অবস্থান, আবার অনেকে পুরোপুরি ফেসবুক ও ব্যানার নির্ভর, আবার কেউ কেউ হাইব্রিড, আবার কারো গরু কিতাবে থাকলেও গোয়ালে নেই। তথাপি এরা কিন্তু মেষ্টা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী। তাই সে বিবেচনায় মহারথীও বটে। কেননা বর্তমানের করোনা পরিস্থিতির কারণে নির্বাচন ও মনোনয়ন নিয়ে অনেকটা ধোঁয়াশা থাকলেও অনেকেই আবার কেতাদুরস্ত পোষাক পড়ে আর সাঙ্গপাঙ্গ নিয়ে চলাফেরা করে নিজেকে রীতিমত চেয়ারম্যান ভাবতে শুরু করে দিয়েছেন। সেকারণে এ ইউনিয়নে নিরবে নিভৃতে বইতে শুরু করেছে নির্বাচনের আগাম এক মৃদু হাওয়া। তবে এতকিছুর পর ভোটার মহলের রয়েছে নিজস্ব জরিপ। রয়েছে আওয়ামী ঘরানার ত্যাগী নেতাকর্মীদের আশা-আকাঙাখার কথাও, সর্বোপরি মেষ্টা ইউনিয়নের ঘুমন্ত জনসেবাকে গতিশীল করার প্রত্যাশিত নেতৃত্ব নিয়ে ইউনিয়নবাসীর নিজস্ব ভাবনা। সবকিছুর সমীকরণে এবার মেষ্টা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়নের দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন মোঃ হারুন-অর-রশিদ তরফদার বাদল ওরফে বাদল তরফদার। মেষ্টা ইউনিয়নের বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষের সাথে কথা বলে জানা গেছে এসব তথ্য।
এদিকে আওয়ামী লীগের জন্য চোখ হারানো বাদল তরফদার সম্পর্কে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ১৩নং মেষ্টা ইউনিয়নের আওয়ামী রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর বাদল তরফদার স্কুল জীবনেই ছাত্রলীগের সাথে অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িয়ে পড়েন। শুরুটা ছিল ১৯৮৮ সালে। তখন তিনি ৮ম শ্রেণির ছাত্র। শুরুতেই মেষ্টা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের প্রমোদ ও আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে যোগদান করেন তিনি। পরবর্তীতে মেষ্টা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক, জামালপুর সরকারি আশেক মাহমুদ কলেজ শাখা ছাত্রলীগের ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক, মেষ্টা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক, মেষ্টা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মানিত সদস্য, মেষ্টা ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক, তারপর অনেক ঘাত-প্রতিঘাত আর চড়াই-উৎড়াই পেরিয়ে বর্তমানে মেষ্টা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের অসাধারণ সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে অত্যন্ত নিষ্ঠা আর দুরদর্শীতার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন তিনি। তার বর্ণিল রাজনৈতিক জীবন দলের জন্য শ্রম আর ত্যাগে ভরপুর। তার জীবনের ৩৩টি বছরের রাজনৈতিক ইতিহাস যেন বঞ্চনার এক বাস্তব গল্পগাঁথা। জীবনের স্বর্ণালী সময়গুলো তিনি বিনিয়োগ করেছেন তার প্রাণপ্রিয় সংগঠন আওয়ামী লীগের জন্য। বিনিময়ে প্রাপ্তি বলতে কর্মী সমর্থকদের ভালবাসা বৈ আর কিছুই জোটেনি তার ভাগ্যে। তথাপিও তিনি বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক আদর্শকে বুকে লালন করে এ ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চলব্যাপী গড়ে তুলেছেন শেখ হাসিনার এক দূর্ভেদ্য দূর্গ। একারণে তার ব্যক্তি ও রাজনৈতিক জীবনে একের পর এক এসেছে বাধা। তবু তিনি দমে যাননি। আর একারণেই আওয়ামী লীগের বিরোধীমহলের আতঙ্ক ও রাজপথের লড়াকু সৈনিক হিসেবে তার পরিচিতি রয়েছে ব্যাপক। তার এ পরিচিতি আর কঠোর পরিশ্রমে আওয়ামী লীগের মাঠ বরাবরই উর্বর থেকে উর্বরতর হয়েছে। আর এ উর্বর মাঠের ফসল ঘরে তুলেছেন অন্যরা। তার ভাগ্যে জুটেছে শুভঙ্করের ফাঁকি! তথাপি আশায় বুক বেধে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের হাল ধরেছেন এ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পরীক্ষিত ও প্রকৃত সৈনিক। নৌকার পক্ষে ভোট আনতে চষে বেড়িয়েছেন ইউনিয়নের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত। দুর্বার ও দৃঃসাহসী এ যাত্রায় তিনি ছিলেন দ্বিগি¦জয়ী এক সৈনিক। কিন্তু বিধিবাম! অবশেষে বিএনপি-জামাতের ডাকা হরতালের আগের দিন ২০১৩ সালের ৯ নভেম্বর হরতাল বিরোধী মিছিলের জন্য মেষ্টা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আশরাফ ফারুকী রুকনের ফার্মেসীতে আহ্বানকৃত এক রাজনৈতিক সভায় বক্তব্য দেওয়ার সময় একটি প্রতিক্রিয়াশীল চক্র তাকে তুলে নিয়ে যায়। তাদের কাছে তিনি ধৃত হয়ে প্রহৃত হন এবং সেই বর্বরতম মধ্যযুগীয় হামলায় তিনি তার অতিমূল্যবান একটি চোখ চিরতরে হারিয়ে ফেলেন। এরপর ঘটে যায় অনেক নাটকীয় ঘটনা। এরপর কেটে গেছে অনেকটা সময়। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সকল ত্যাগী নেতাকর্মীদের প্রতীক্ষা এবারের একটি অর্থবহ নির্বাচনের। আর এবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের জন্য চোখ হারানো মোঃ হারুন-অর-রশিদ তরফদার বাদল ওরফে বাদল তরফদারকে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয় দিয়ে যথার্থ মূল্যায়ন প্রত্যাশায় বুক বেধে আছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগসহ তার অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের ত্যাগী নেতাকর্মী এবং সমর্থকরা।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply




© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design & Developed BY SheraWeb.Com