বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৭:৩০ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
গজনী অবকাশে মহাআনন্দের ছড়াছড়িতে দৈনিক সত্যের সন্ধানে প্রতিদিন পত্রিকার ১০ম বর্ষে পদার্পণের অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ উচ্চ বিদ্যালয়ে নবীন বরণ-জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী সংবর্ধনা রঙিন ফুলকপি চাষ করে জীবন রাঙাতে চায় ঝিনাইগাতীর শফিকুল  ১নং কেন্দুয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সাইফুল ইসলাম খান সোহেল সফলতার সাথে ইউনিয়নের উন্নয়নমূলক কাজ করে আজ প্রথম বছর পেরিয়ে দ্বিতীয় বছরে পদার্পণ হাজীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে বই বিতরণ কেন্দুয়া বাংলাদেশ উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দিলেন কেন্দুয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সাইফুল ইসলাম খান সোহেল কুটামনি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নতুন বই পেয়ে উচ্ছ্বসিত কেন্দুয়া বাংলাদেশ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে নতুন বই বিতরন বকশীগঞ্জ আ.লীগ সভাপতির বাসায় দূর্ধষ ডাকাতি জামালপুরের মেষ্টা ইউনিয়নে বুদ্ধি প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণ, ধর্ষক চাচা গ্রেপ্তার
ছোট আরংহাটি হতে মেলান্দহ উপজেলার ঘোষেরপাড়া পর্যন্ত এলাকাবাসীর স্বেচ্ছা শ্রমের মাধ্যমে রাস্তা নির্মাণ

ছোট আরংহাটি হতে মেলান্দহ উপজেলার ঘোষেরপাড়া পর্যন্ত এলাকাবাসীর স্বেচ্ছা শ্রমের মাধ্যমে রাস্তা নির্মাণ

নিজস্ব প্রতিবেদক ||
জামালপুর সদর উপজেলার ১৩নং মেষ্টা ইউনিয়নের ছোট আরংহাটি হতে মেলান্দহ উপজেলার ঘোষেরপাড়া পর্যন্ত প্রায় ২ কিঃমি রাস্তা এলাকাবাসীর স্বেচ্ছা শ্রমের মাধ্যমে নিমার্ন করা হয়েছে। এতে করে উপকৃত হবে মেলান্দহ উপজেলার ঘোষেরপাড়া, চরঘোষেরপাড়া, ছবিলাপুর, নাগেরপাড়া, চালকান্দি, টাংগেরপাড়া, বীরঘোষেরপাড়া, আলমপুরসহ জামালপুর সদর উপজেলার ১৩নং মেষ্টা ইউনিয়নের প্রায় লক্ষাধিক গ্রামবাসী। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, শুধুমাত্র একটি রাস্তার কারনে দীর্ঘদিন যাবৎ কৃষি পন্য সহ যাতায়াত নিয়ে ভোগান্তিতে ছিলেন জামালপুর সদর উপজেলার ১৩নং মেষ্টা ইউনিয়নের ছোট আরংহাটিসহ মেলান্দহ উপজেলার ঘোষেরপাড়া গ্রামের লক্ষাধিক মানুষ। রাস্তাটি স্বেচ্ছাশ্রমে নির্মানের জন্য ছোট আরংহাটি এলাকার মোঃ জিয়াউল হকের নেতৃত্বে স্থানীয় মানিক মিয়া, মাসুদ রানা, দেলোয়ার, নুর ইসলাম, মজিবর, সবুজ গং উদ্যোগ নিয়ে প্রায় দুই লক্ষাধিক টাকা খরচ করে রাস্তাটি চলাচলের উপযোগি করে তোলে। এ বিষয়ে মোঃ জিয়াউল মিয়া বলেন, আমাদের এই রাস্তাটির কারনে আমরা সহজেই চলাচল করতে পারিনি। রাস্তার মাঝে ছিল গর্ত যা ভরাট করতে হয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদ নজর না দেওয়ার কারনেই দীর্ঘদিন ভোগান্তিতে ছিলাম আমরা। ঘোষেরপাড়া গ্রামের শিক্ষার্থী শাহীন বলেন, আমি হাজীপুর মাদ্রাসার ছাত্র। প্রতিদিন আমাকে প্রায় ১ কিঃমি রাস্তা ঘুরে আসতে হতো। এখন এই রাস্তাটি হওয়ার কারনে আমাদের অনেক সুবিধা হয়েছে। তবে একটি খাল রয়েছে যেখানে সেতু পার হতে কষ্ট হয়। গাড়ী চলাচল করতে পারে না। যদি রাস্তাটি পাকা করে সেতুটি নির্মান করে দেওয়া হয় তাহলে জামালপুর সদর উপজেলার ১৩নং মেষ্টা ইউনিয়ন ও মেলান্দহ উপজেলার ঘোষেরপাড়া ইউনিয়নসহ কয়েকটি গ্রামের লক্ষাধিক মানুষ উপকৃত হবে। গাড়ী চালক সবুজ বলেন, এই রাস্তাটি আমাদের খুবই প্রয়োজন। রাস্তাটি না হওয়ার কারনে দীর্ঘদিন যাবৎ গ্রামবাসী কৃষিপন্য আনা নেওয়া খুবই কষ্ট করে যাচ্ছে। আমরা স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে চলাচলের উপযোগী করেছি মাত্র। কতৃর্পক্ষের মাধ্যমে একটি পাকা রাস্তা জরুরী প্রয়োজন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply




© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design & Developed BY SheraWeb.Com